যে কারনে রাতে দেরি করে ঘুমাতে নিষেধ করেছেন মহানবী (সা.)

বিজ্ঞানিরা অনেক ব্যখ্যা, বিশ্লেষণ করে পেয়েছেন রাতে তাড়াতাড়ি ঘুমাতে যাওয়া আর সকালে জলদি ঘুম থেকে উঠা সুস্বাস্থ্য, সম্পদ আর জ্ঞানের পূর্বশর্ত। বিষয়টি রাসুল (সা.)-এর হাদিসের সঙ্গেও মিলে যায়। আমাদের প্রিয় নবী (সা.) রাতে দেরি করে ঘুমানো অ’পছন্দ করতেন। সাহাবায়ে কিরামকে তাগিদ দিতেন এশার পরপরই ঘুমিয়ে যাওয়ার।

রাসুলুল্লাহ (সা.) এশার নামাজ এক-তৃতীয়াংশ রাত পরিমাণ দেরি করে পড়া পছন্দ করতেন, আর এশার আগে ঘুমানো এবং এশার পর না ঘুমিয়ে গল্পগুজব করা অ’পছন্দ করতেন। (সহিহ বুখারি, হাদিস : ৫৯৯)

রাতে দেরিতে ঘুমানোয় স্বাস্থ্যঝুঁ’কি, মানুষের সুস্থতার জন্য প্রয়োজন পর্যাপ্ত পরিমাণ ঘুম। এর জন্য সবচেয়ে উপযোগী সময় হলো রাত। কেননা আল্লাহ তাআলা রাতকে বিশ্রামের উপযোগী করেই বানিয়েছেন। মহান আল্লাহ তাআলা ইরশাদ করেন, ‘আমি তোমাদের বিশ্রামের জন্য নিদ্রা দিয়েছি, তোমাদের জন্য রাত্রিকে করেছি আবরণস্বরূপ

আর দিনকে বানিয়েছি তোমাদের কাজের জন্য।’ (সুরা : নাবা, আয়াত : ৯-১১)
খুব ভোরে উঠা মানুষগুলো সবার থেকে আলাদা ও কর্ম’দক্ষ হয়ে থাকে। গবেষণায় দেখা যায়, যারা খুব ভোরে ঘুম থেকে ওঠে কিংবা রাতে কম ঘুমায়, অন্যদের তুলনায় তাদের আইকিউ ভালো হয়।

প্রিয় নবী (সা.) ইরশাদ করেছেন, ‘আল্লাহ ওই বান্দার ওপর রহম করুন, যে রাত্রিকালে উঠে নামাজ আদায় করে এবং তার স্ত্রী’কেও জাগায় এবং সেও নামাজ আদায় করে। যদি সে (স্ত্রী’) নিদ্রার চাপে উঠতে না চায়, তবে সে (ভালোবেসে) তার মুখে পানি ছিটিয়ে দেয়।

About NewsBangla

Check Also

কুড়িগ্রামের রাজারহাটে ১১৯ বছর বয়সেও খালি চোখে কোর-আন পড়েন জোবেদ আলী। বিস্তারিত ভিতরে….

বয়স ১১৯ ছুঁই ছুঁই। যে বয়সে মানুষ বিছানায় মৃ’ত্যুর প্রহর গোণেন। সেই বয়সে তিনি এখনো …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *